fbpx

Basics

PLC

VFD

Stepper Motor

HMI

One-line Diagram

ডে-৬১ : VFD সম্পর্কিত অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সমূহ

প্রজেক্ট: VFD সম্পর্কিত অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সমূহ

উদ্দেশ্য

আমরা জানি যে, VFD এর ক্ষেত্রে ফ্রিকোয়েন্সি সরাসরি মোটরের গতির সাথে সম্পর্কিত। এখানে আমরা শিখব,  কিভাবে মোটরের প্রয়োজনীয় স্পিডের জন্য কত মানের ফ্রিকোয়েন্সি সিলেক্ট করতে হবে।

কিংবা কত ফ্রিকোয়েন্সিতে  কত পোলের মোটরের ঘূর্ণন গতি কত হবে তা নির্বাচন করতে পারব। একটি এসি ইন্ডাকশন মোটরের গতি দুটি বিষয়ের উপর নির্ভর করে। যথাঃ

  1. মোটরের পোল সংখ্যার উপর
  2. ব্যবহৃত পাওয়ারের ফ্রিকোয়েন্সির উপর। 

মোটর পোলঃ মোটরের পোল বলতে একটি মোটর এ কতগুলো নর্থ কিংবা  সাউথ ম্যাগনেটিক ফিল্ড  তৈরীর ক্ষেত্র রয়েছে তাকে বোঝায়।যা মূলত পারমানেন্ট ম্যাগনেট কিংবা তারের কয়েল এর মাধ্যমে তৈরি। 

মোটরে কতগুলো কয়েল ব্যবহার করা হয়েছে তার উপর পোল সংখ্যা  নির্ভর করে।  সাধারনত থ্রি ফেজ মোটরের ক্ষেত্রে পোলসমূহ জোড়া জোড়া হয়ে থাকে। নিচে চিত্রের মাধ্যমে ২, ৪ এবং ৬  পোল বিশিষ্ট মোটরের গঠন দেখানো হলো।

মোটর স্পিড  ক্যালকুলেশন এর সূত্র হচ্ছে, n=120 × fp  যেখানে,  n = synchronous speed f = supply frequency p = pairs of poles per phase মোটরের পোল গণনার জন্য মোটরের গায়ে দেওয়ার ডাটা প্লেটের মধ্যে দেওয়া থাকে। 

এছাড়াও আপনি  থ্রি ফেজ মোটরের কয়েলের সংখ্যা গণনা করে,  প্রাপ্ত  কয়েলের  ৩ বা ৬(অর্থাৎ  প্রতিটি কয়েলের সাথে যতগুলো পোল রয়েছে) জোড়া ধরে হিসাব করে এরপর সংখ্যা বের করতে পারবেন। নিচে ৫০ হার্জ ও ৬০ হার্জ এর  থ্রি ফেজ মোটরের RPM পোল সংখ্যার উপর ভিত্তি করে ডাটা শিট দেওয়া হল।  

নিম্নে পোল সংখ্যার উপর ভিত্তি করে  থ্রি ফেজ মোটরের RPMfrequency এর ক্যালকুলেশন দেখানো হলো।  3 Phase AC Motor Speed Formula:    RPM=120 × Frequency Number of Poles

Example 1:  The speed of a 4-Pole Motor operating at 60 Hz would be: RPM=120 × 604 ∴RPM=72004= 1800 rpm.

Example 2:  Find the frequency needed of a 4-Pole Motor operating at 600 RPM. We know that, RPM=120 × Frequency Number of Poles Frequency=RPM × Number of poles120 ∴Frequency=600 × 4120 =20Hz

VFD ইন্সটলেশন ও ওয়্যারিংঃ VFD ইন্সটলেশন ও ওয়্যারিং এ তেমন কোনো জটিলতা নেই। অন্যান্য ডিভাইসের মতোই একে সহজেই ইন্সটল করা যায়। তবে, ওয়্যারিং এর জন্য সঠিক মানের ক্যাবল সিলেকশন করতে হবে।  নিম্নে VFD wiring এর একটি বেসিক চিত্র দেওয়া হলো। 

চিত্রঃ VFD Power Wiring Diagram

এখানে, R,S, T হলো মেইন পাওয়ার ইনপুট টার্মিনাল। যা থ্রী-ফেজ মূল পাওয়ার সোর্সের সাথে সংযুক্ত থাকে।(উল্লেখ্য, যদি লাইনটি সিঙ্গেল ফেজ হয়, সেক্ষেত্রে যেকোনো দুটি টার্মিনালে L, N এর কানেকশন দিতে হবে।)  অন্যদিকে, U,V,W হলো আউটপুট টার্মিনাল যা থ্রী-ফেজ মোটরের সাথে সংযুক্ত থাকে। মজার বিষয় হচ্ছে, VFD এর মাধ্যমে সিঙ্গেল ফেজ লাইন ব্যবহার করেও থ্রী ফেজ মোটরকে কন্ট্রোল করা যায়।

GND টার্মিনালকে ক্যাবলের মাধ্যমে গ্রাউন্ডের সাথে সংযোগ করা হয়। এই প্রোজেক্টের জন্য আমরা YASKAWA VS mini C Series এর একটি VFD নিয়ে কাজ করব।

উল্লেখ্য যে,  যেকোনো VFD নিয়ে কাজ করার পূর্বে অবশ্যই এর ম্যানুয়াল বইটি চেক করে নিতে হবে। কেননা,  ঐ VFD তে এর প্যারামিটার, ফাংশন এবং মোড সহ অন্যান্য সকল তথ্য ম্যানুয়াল বইয়ে দেওয়া থাকে। যার মাধ্যমে খুব সহজেই বিভিন্ন প্যারামিটার সেটআপ এবং ফাংশনগুলো সেটআপ করতে সহজ হয়।  নিম্নে YASKAWA VS mini C Series এর VFD টির  নেমপ্লেট,  মডেল নম্বর ও ক্যাপাসিটি সহ অন্যান্য সকল তথ্য চিত্রের মাধ্যমে উপস্থাপন করা হলোঃ 

প্যারামিটার সেটআপঃ প্যারামিটার হচ্ছে কতকগুলো ভেরিয়েবল নম্বর (যেমন, 01, 20, 30, 50) বা কিছু ইনস্ট্রাকশন (যেমন, FWD [forward], REV [reverse] ইত্যাদি)। যা VFD এর ইনপুটে প্রদান করে আউটপুটকে  কন্ট্রোল  করার জন্য প্রোগ্রাম লেখা হয় কিংবা অপারেটর দ্বারা অপারেট করা হয়।  আরো সহজভাবে বলতে গেলে,  VFD এর নিজস্ব কিছু প্রোগ্রাম থাকে,  যার মাধ্যমে একজন অপারেটর সহজে  তার মোটরের প্রয়োজনীয় স্পিড ও টর্ক অনুযায়ী মোটরের জন্য frequency, voltage এবং current এর মানের পরিবর্তন করতে পারে।

এ প্রোগ্রাম বা ইনস্ট্রাকশনকে প্যারামিটার বলা হয়। আর প্রয়োজনীয় প্যারামিটার গুলো কে ইনপুট দেওয়াই হচ্ছে প্যারামিটার সেটআপ। একটি VFD এর মাধ্যমে নিখুঁত কন্ট্রোলের জন্য প্যারামিটার সেট করতে হবে। প্যারামিটার সেট করতে আপনাকে VFD এর ইউজার ম্যানুয়াল বইটি অনুসরণ করতে হবে।

কারণ, প্রতিটি VFD তে এর মডেল এবং লোড ক্যাপাসিটির উপর নির্ভর করেে, কিছু ভিন্ন ধরনের প্যারামিটার, প্যারামিটার সংখ্যা এবং প্যারামিটার মান থাকে। সুতরাং, প্যারামিটার সেট করার আগে আপনাকে অবশ্যই ইউজার ম্যানুয়াল চেক করতে হবে।

যদি আপনার VFD- এর জন্য কোনো ইউজার ম্যানুয়াল বই না থাকে, তাহলে আপনি আপনার ব্র্যান্ডের নাম এবং মডেল নম্বর চেক করে ইন্টারনেটে সার্চ করতে পারেন। এর মাধ্যমে আপনি সহজেই খুঁজে পাবেন।